Home ইসলাম পাঁচ ওয়াক্ত নামাযের দৃষ্টান্ত

পাঁচ ওয়াক্ত নামাযের দৃষ্টান্ত

by admin
০ comment

পাঁচ ওয়াক্ত নামাযের দৃষ্টান্ত

মোহাম্মদ আবুল হোসাইন চৌধুরী

 

১.হযরত জাবির রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেছেন, রাসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন : পাঁচ ওয়াক্ত নামাযের দৃষ্টান্ত হচ্ছে-যেমন একটি বড় নদী প্রবাহিত হয়ে গেছে তোমাদের কারো ঘরের দরজার সামনে দিয়ে তাতে সে প্রতিদিন পাঁচবার করে গোসল করে।

২.হযরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন : তোমাদের কারো বাড়ীর সামনে যদি একটা পানির ফোয়ারা (খাল-বিল, পুকুর, প্রবাহমান নদী) থাকে এবং সে তাতে দৈনিক পাঁচবার গোসল করে : তবে তার শরীরে কেনো ময়লা অবশিষ্ট থাকতে পারে কি? সাহাবাগণ বললেন : না, তার শরীরে কোনো ময়লা থাকতে পারে না। রাসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন : এই হচ্ছে পাঁচ ওয়াক্ত নামাযের দৃষ্টান্ত, এর সাহায্যে আল্লাহতায়ালা (নামাযির) যাবতীয় গুনাহ-খাতা মাফ করে দেন।

ঈমানের পর ইসলামের প্রধান স্তম্ভ ও শ্রেষ্ঠ ইবাদত হলো নামায। ঈমানের বহিঃপ্রকাশের জন্য ইসলামের অপর চারটি রুকনের মধ্যে নামাযই সার্বজনীন। মহানবী সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আলোচ্য উপরোক্ত হাদীসে চমৎকার দৃষ্টান্তের মাধ্যমে পাঁচ ওয়াক্ত সালাত আদায়ের গুরুত্ব, তাৎপর্য ও উপকারিতা তুলে ধরেছেন। সত্যিকার অর্থেই যদি কারো বাড়ির আঙ্গিনায় পুকুর বা নদী-নালা থাকে আর সে তাতে দৈনিক পাঁচবার গোসল করে তা হলে তার শরীরে ময়লা থাকতে পারে না। তদ্রƒপ কেউ যদি পাঁচবার মনের সকল কূটিলতা দূর করে খুশু-খুজুর সাথে একাগ্রচিত্তে সালাত আদায় করে তাহলে তার পাপ পঙ্কিলতা দূরীভূত হয়ে সে হতে পারে একজন নিষ্কলুষ মানুষ।

You may also like