Home ইসলাম নামাযের সময়

নামাযের সময়

by admin
০ comment

নামাযের সময়

মোহাম্মদ আবুল হোসাইন চৌধুরী

 

১.আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত। নবী করৗম সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন : প্রত্যেক নামাযেরই একটা প্রথম সময় রয়েছে এবং একটা শেষ সময় রয়েছে। তার বিবরণ এই যে-

ক.জোহরের নামাযের প্রথম সময় শুরু হয় তখন, যখন সূর্য মধ্য আকাশ হতে পশ্চিমের দিকে ঢলে পড়ে। তার শেষে সময় আসরের নামাযের শুরু হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত থাকে।

খ.আসরের নামাযের সময় শুরু হয় তার সময় সূচিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই। আর তার শেষ সময় তখন, যখন সূর্যরশ্মি হরিৎ বর্ণ ধারণ করে।

গ.মাগরিব নামাযের সময় শুরু হয় যখন সূর্যাস্ত ঘটে। আর তার শেষ সময় তখন পর্যন্ত থাকে, যখন সূর্যাস্তকালীন রক্তিম লালিমা নিঃশেষে মুছে যায়।

ঘ.এশার নামাযের প্রথম সময় থাকে, যখন সুর্যাস্ত কালীন রক্তিম আভা নিঃশেষ হয়ে যায় এবং তার শেষ সময় দীর্ঘায়িত হয় অর্ধেক রাত পর্যন্ত।

ঙ.আর ফযরের নামাযের প্রথম সময় শুরু হয় প্রথম উষার উদয় লগ্নে তার শেষ সময় সূর্যোদয় পর্যন্ত থাকে।(জামে আত-তিরমিযী)

২.হযরত বুরায়দা রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন,এক ব্যক্তি নামাযের ওয়াক্ত সম্পর্কে জিজ্ঞেস করল। নবী করীম সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, ‘তুমি দু’দিন আমাদের সঙ্গে নামায পড়বে। প্রথম দিন মধ্যাহ্নের সূর্য কিছুটা পশ্চিমে হেলে যাওয়ার পর হযরত বিলাল রাদিয়াল্লাহু আনহুকে রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আদেশে যোহরের আযান দিলেন অতঃপর ইকামত দিলেন। এরপর সূর্য সাদা থাকা অবস্থায়ই হযরত বিলাল রাদিয়াল্লাহু আনহুকে রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আদেশে আসরের আযান দিলেন এবং ইকামত দিলেন। এরপর সূর্যাস্তের পর হযরত বিলাল রাদিয়াল্লাহু আনহুকে রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আদেশে মাগরিব এবং পশ্চিমাকাশের আলোক-আভা অস্তমিত হওয়ার পর এশার নামাযের আযান দিলেন এবং ইকামত দিয়ে নামায পড়ালেন।

দ্বিতীয় দিন হযরত বিলাল রাদিয়াল্লাহু আনহুকে রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আদেশে যোহরের আযানে বিলম্ব করলেন। রৌদ্রের তাপ অনেকটা ঠান্ডা হওয়ার পর যোহরের নামায আদায় করা হল। এরপর আসরের নামাযও বিলম্বিত করা হল এবং সূর্য কিছুটা উচ্চতায় থাকা অবস্থায় নামায আদায় করা হল। এরপর মাগরিব পশ্চিমাকাশের আলোক-আভা অস্তমিত হওয়ার কিছু আগে আদায় করা হল এবং এশা রাতের এক তৃতীয়াংশ পর্যন্ত বিলম্বিত করা হল। ফজরের নামায চারদিক ভালোভাবে ফর্সা হওয়ার পর আদায় করা হল। এরপর রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সেই প্রশ্নকারীকে ডাকলেন। সাহাবী উপস্থিত হলে রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন,এই দুই সময়ের মধ্যেই তোমাদের নামাযের সময় নির্ধারিত। (সহীহ মুসলিম)

You may also like